রোববার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

| ৯ আশ্বিন ১৪২৯

KSRM
মহানগর নিউজ :: Mohanagar News

প্রকাশের সময়:
১৮:৩৩, ১৪ আগস্ট ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক

ফুটপাতে উচ্ছেদ দখল খেলা— মাঠে নামছে ‘স্ট্রাইকিং ফোর্স’

প্রকাশের সময়: ১৮:৩৩, ১৪ আগস্ট ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক

ফুটপাতে উচ্ছেদ দখল খেলা— মাঠে নামছে ‘স্ট্রাইকিং ফোর্স’

সময়টা গত ডিসেম্বরের মাঝামাঝি, সকাল ৯টা। চট্টগ্রাম নগরীর শহীদ মিনার ও তার আশপাশ এলাকায় হঠাৎ একদল লোক এসে গুঁড়িয়ে দেয় অবৈধ দোকানপাট। উচ্ছেদের ‘নোটিশ’ না দেওয়াকে কেন্দ্র করে এসময় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) সেই দলটির ওপর চড়াও হয় হকাররা। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। কিন্তু সেদিন এমন তুলকালাম কাণ্ডের পরও বিকেলে ফের বেদখলে চলে যায় ফুটপাত।

নগরবাসীর আক্ষেপ— চট্টগ্রাম নগরীর সড়ক ও ফুটপাতে দখল-উচ্ছেদের পর ফের বেদখলের এ চিত্র বহু পুরানো। আগ্রাবাদ, সদরঘাট, বাকলিয়া, নিউমার্কেট, জহুর হকার মার্কেট, কালুরঘাট মোহরা, কাপ্তাই রাস্তার মাথা, চকবাজারসহ নগরী জুড়ে সকালে উচ্ছেদ শুরু হলে দুপুর কিংবা বিকেলে ফের চলে যায় দখলে। 

ম্যাজিস্ট্রেট পিছু ফিরতেই চসিকের দায়িত্বশীল ও স্থানীয় প্রভাবশালীদের মাসোহারা দিয়ে হকাররা ফুটপাতে দোকান বসিয়ে দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে এবার উচ্ছেদের পর এসব তদারকিতে মাঠে নামানো হচ্ছে ‘স্ট্রাইকিং ফোর্স’। উচ্ছেদে পর ফের বেদখল হয়ে যাওয়া এলাকা মনিটরিং করবে দলটি।

রোববার (১৪ আগস্ট) মাঠে নামানোর সব প্রস্তুতি শেষে এ দলটিকে ব্রিফিং করেন চসিক মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী। তিনি বলেন, ফুটপাতে দখলদার যত বড় শক্তিশালীই হোক না কেন আমরা উচ্ছেদ করবো এবং পুনরায় যাতে দখল না হয় সেটাও নিশ্চিত করবো। শহরের সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনতে যা যা করণীয় সবটুকই করবো।

মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী জানান, বিশেষ দলটি উচ্ছেদ হওয়া স্পটগুলো নিয়মিত পরিদর্শন করবে। এ সময় কোথাও পুনর্দখল হতে দেখলে সাথে সাথে আবারও ‘অ্যাকশন’ শুরু করবে। এছাড়া সারা শহর ঘুরে কোথাও সড়ক ও ফুটপাত দখল হয়েছে কি-না তা চিহ্নিত করবে নবগঠিত এ ফোর্সের সদস্যরা। উচ্ছেদকৃত জায়গাগুলো মনিটরিং করবে। পাশাপাশি নগরীর কোথাও সড়ক এবং ফুটপাত দখল হয়েছে কি-না তা চিহ্নিত করে প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তাকে রিপোর্ট করবে তারা।

চসিক সূত্র জানায়— সম্প্রতি ফুটপাত ও রাস্তায় কোনো অবৈধ দখলদার হটাতে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেন মেয়র রেজাউল। তার এ ঘোষণার পরই উচ্ছেদ করা জায়গা পুনর্দখল রোধে স্ট্রাইকিং ফোর্স গঠন করা হয়। এতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন চসিকের ভারপ্রাপ্ত প্রধান পরিচ্ছন্নতা কর্মকর্তা আবুল হাশেম।

২০ সদস্যের এ স্ট্রাইকিং ফোর্সে পরিচ্ছন্নতা বিভাগের কর্মীদের রাখা হয়েছে। যারা বয়সে তরুণ, সুঠাম দেহের অধিকারী, চতুর তাদের বাছাই করে প্রস্তুত করা হয়েছে দলটি। উচ্ছেদ কার্যক্রম তদারকি ও অভিযানে ব্যবহারের জন্য দেওয়া হয়েছে ১৮ ধরণের নিরাপত্তা সরঞ্জাম। জলপাই রংয়ের চসিকের লগো যুক্ত বিশেষ পোশাকে মনিটরিংয়ে নামবে দলটি।

চসিকের প্যানেল মেয়র ও ১৫ নম্বর বাগমনিরাম ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন জানান, ফুটপাত ও সড়কে বেদখল রুখতে জিরো টলারেন্স নীতিতে থাকবে এ স্ট্রাইকিং ফোর্স। তাদের আচরণগত বিষয়টি নিশ্চিত করতে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে।

এপি/এসএ