রোববার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

| ৯ আশ্বিন ১৪২৯

KSRM
মহানগর নিউজ :: Mohanagar News

প্রকাশের সময়:
১৯:৪৬, ১৪ আগস্ট ২০২২

কক্সবাজার প্রতিনিধি

জমি নিয়ে বিরোধ—রামুতে পৃথক ঘটনায় ২ জনকে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশের সময়: ১৯:৪৬, ১৪ আগস্ট ২০২২

কক্সবাজার প্রতিনিধি

জমি নিয়ে বিরোধ—রামুতে পৃথক ঘটনায় ২ জনকে কুপিয়ে হত্যা

হত্যার ঘটনায় এলাকায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ। ইনসেটে নিহত আবদুল আমিন ও নাজির হোসেন

কক্সবাজারের রামুতে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে পৃথক ঘটনায় ২ জনকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। নিহতরা হলেন- রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের নতুন মুরাপাড়ার মৃত ছমি উদ্দিনের ছেলে নাজির হোসেন নাজু (৫০) ও একই উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের ধোয়াপালং রাবেতা এলাকার মৃত ইবনে আমিনের ছেলে আবদুল আমিন (৪৫)।

জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল শামসুদ্দিন আহমেদ প্রিন্স বলেন, রবিবার (১৪ আগস্ট) বিকাল ৩ টায় জমিতে ধান রোপন করা নিয়ে মৃত ছমি উদ্দিনের ছেলেদের সাথে একই এলাকার জাফর আলমের ছেলেদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে দুপক্ষ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে অবস্থান নেয়। সংঘর্ষে উপুর্যপুরি দায়ের আঘাতে দুপক্ষের কয়েকজন গুরতর আহত হন। নাজির হোসেনসহ কয়েকজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক নাজির হোসেনকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় দুপক্ষের মধ্যে গুরতর আহতরা হলেন- নিহত নাজির হোসেনের ভাই আমির হোসেন, জাফর আলমের মেয়ে রাশেদা বেগম, ছেলে ইসমাইল ও মনজুর আলমের ছেলে মো. রশিদ। এরমধ্যে গুরতর আহত রাশেদা বেগমকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

অপরদিকে রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের ধোয়াপালং রাবেতা এলাকায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের দায়ের কোপে গুরতর আহত আবদুল আমিন শনিবার (১৩ আগস্ট) মধ্যরাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান।
 
এ বিষয়ে নিহতের মেয়ে তাসলিমা আকতার রাফি বলেন, গেল ১০ আগস্ট সকাল ১০ টার দিকে কথা কাটাকাটির জেরে স্থানীয় আবদুল বারির ছেলে নুরুল হক ও জামাতা আমির হামজাসহ ৬/৭ জনের একটি দল বাবার মাথায় দা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে।। এরপর তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল রাতে মারা যান।  

খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল হক জানান, দীর্ঘদিন দুপক্ষের মধ্যে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। এনিয়ে থানায় একটি পক্ষ অভিযোগ দিলে তা সমাধানের জন্য পরিষদকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। সমাধানের জন্য তিনি ঘটনাস্থলেও যান। কিন্তু সমাধানের আগেই দুপক্ষে বিবাদে জড়িয়ে পড়ে। এরই জের ধরে আবদুল আমিনকে বাড়ি থেকে ডেকে ৬/৭ জনের একটি দল পকিল্পিতভাবে হত্যা করেছে।

এদিকে আবদুল আমিনকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে রবিবার (১৪ আগস্ট) দুপুরে রামুর খুনিয়াপালংয়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমাবেশে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল গনি, ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি আবদুল্লাহ বিদ্যুৎ, রমিজ আহমদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে পৃথক ঘটনায় ২ জনকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় পুরো রামুতে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এসব ঘটনায় পুলিশ এখনও কাউকে আটক করতে পারেনি।

রামু থানায় অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনোয়ারুল হোসাইন পৃথক ঘটনায় ২ জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, এসব ঘটনায় জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে।

এআই