সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২

| ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯

KSRM
মহানগর নিউজ :: Mohanagar News

প্রকাশের সময়:
২১:২১, ২৪ জুন ২০২২

কক্সবাজার প্রতিনিধি

কক্সবাজারে পুকুরে ডুবে কলেজ ছাত্রের মৃত্যু

প্রকাশের সময়: ২১:২১, ২৪ জুন ২০২২

কক্সবাজার প্রতিনিধি

কক্সবাজারে পুকুরে ডুবে কলেজ ছাত্রের মৃত্যু

কক্সবাজার শহরের বাজারঘাটা পুকুরে গোসল করতে নেমে মারুফুল ইসলাম মাহি (১৯) এক কলেজ ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। 

শুক্রবার (২৪ জুন) বেলা ১১ টার দিকে সে পুকুরে ডুবে যায় এবং বিকেল চারটার তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।  

মাহি কক্সবাজার পৌরসভার দক্ষিণ রুমালিয়ারছরা টেকনাইপ্পা পাহাড় এলাকার আবদুল মালেকের ছেলে এবং কক্সবাজার সিটি কলেজের বিএম একাদশ শ্রেণির দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

মাহির বন্ধু ইয়াছরিফ রশিদ তামিম জানায়, সকাল ৯টার দিকে তারা ৯ বন্ধু রুমালিয়ারছরা পিটিআই মাঠে ফুটবল খেলে। ঘন্টাখানেক পর তারা ৯ বন্ধু সদ্য সংস্কার হওয়া বাজারঘাটা পুকুরে (নাপিতাপুকুর) গোসল করতে নামে। এদিক-ওদিক সাঁতার কাটতে কাটতে বেলা ১১টার দিকে সবাই উঠে আসলেও সিঁড়িতে মাহিকে দেখা যাচ্ছিল না। তখন সবাই মিলে পুকুরে তাকে খুঁজতে থাকে। তার ধারণা, সাঁতার কাটার সময় মাহি পানিতে ডুবে গেছে। 

প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল হক নূর বলেন, সহপাঠীরা বন্ধুকে খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়ে পরিবারে বাবা-মাকে কল করে। স্বজনরা আসার পর জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ কল করে ফায়ারসার্ভিসকে বিষয়টি অবগত করা হয়। দমকলকর্মীরা এসে পুকুরে নামে। দীর্ঘ আড়াইঘণ্টা চেষ্টা চালিয়েও তারা মাহিকে খুঁজে পায়নি। পরে সৈকতে কাজ করা লাইফগার্ড কর্মীরা এসে দমকলবাহিনীর সাথে যোগ দেয়। বাবা-মা ও স্বজনদের আহাজারিতে পুকুর পাড়ের পরিবেশ ভারি হয়ে উঠে। ঘন্টাখানেক পর লাইফগার্ড কর্মীরা মাহীকে পুকুরের পূর্বপাড়ের কাছাকাছি এলাকা হতে তুলে আনে। পরে তাকে দ্রুত কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হয়।

কক্সবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আশিকুর রহমান বলেন, পানিতে ডুবে যাওয়া এক তরুণকে বিকেলে হাসপাতালে আনা হয়। তার নাক-মুখ দিয়ে ফেনা ও রক্ত বের হচ্ছিল। হাসপাতালে আনার আগেই সে মারা যায়। দম আটকে গেলে স্ট্রোক জনিত কারণেও এমনটি হতে পারে। 

কক্সবাজার সদর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস বলেন, বাজারঘাটার পুকুরে ডুবে মারা যাওয়া এক তরুণ শিক্ষার্থীর মরদেহ হাসপাতালে রাখা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে এটি অনাকাঙ্খিত মৃত্যু হিসেবেই গণ্য করা হচ্ছে। তার পরিবারের সিদ্ধান্তের ওপর পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এআই